ত্বকের যত্নে গাজর ও হলুদের মিশ্রণ

ওয়েব ডেস্ক, প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০১৭

সারাদিনে অফিসে দৌড়ঝাপের পর বাড়ি ফিরে ক্লান্তি ছাপ ফেলে। পরের দিন একই ভাবে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে একই রুটিন। যার জেরে ধীরে ধীরে শরীর ক্লান্তির ছাপ স্পষ্ট দেখা দেয়। প্রতি দিন এভাবে কাজ করতে গেলে ত্বকের ক্ষেত্রেও লাগে যত্ন। শরীরের এই চাহিদা অ্নেখকটাই পূরণ করতে পারে গাজর ও হলুদের মিশ্রণ। একনজরে দেখে নিই এই মিশ্রনের কিছু রেসিপি।
গাজরের রস তিন টেবিল চামচ, হলুদ ২ চা চামচ।
প্রথমে একটি বাটিতে গাজরের রস ও হলুদ ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এবার পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। পরে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই মিশ্রনের উপকারিতা: ত্বকের ঔজ্বল্য বাড়ায় প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরি গাজরের রস-হলুদের পেস্টটিতে ভিটামিন এং নানা পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এসব উপাদান ভেতর থেকে ত্বকের পুষ্টির জোগান দেয়। এর ফলে ত্বক হয়ে ওঠে আরও উজ্জ্বল ও প্রাণবন্ত।।
কালো দাগ দূর করে গাজরের রস এবং হলুদের তৈরি এই পেস্টে ভিটামিন এ এবং বেটা -ক্যারোটিন থাকায় তা ত্বকের ছোটখাট যে কোন কালচে দাগ দূর করতে ভূমিকা রাখে।
বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে প্যাকটিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বিদ্যমান থাকায় তা ত্বকের কোলাজেনের উৎপাদন বাড়ায়। এর ফলে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতার উন্নতি ঘটে এবং বলিরেখা প্রতিহত হয়।
আল্ট্রাভায়োলেট রশ্নি থেকে রক্ষা করে প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন হিসেবে এই উপাদান দুটি বেশ কার্যকর। এছাড়া এটি সূর্যের আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির ক্ষতিকর প্রভাব থেকেও ত্বককে রক্ষা করে। এটি ত্বক পুড়ে যাওয়াসহ যে কোন ক্ষতি থেকে আমাদের সুরক্ষা দেয়। ত্বকের আদ্রতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে
প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরি এই প্যাকটি শুষ্ক ত্বকের প্রতিটি কোষে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে ভূমিকা রাখে। এতে ত্বকের শুষ্ক ভাব অনেক কমে যায়। সেইসঙ্গে ত্বক হয়ে ওঠে আরও নরম।
ব্রণর পরিমাণ কমায় গাজরের জুস-হলুদের এই পেস্টটিতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান থাকায় তা আপনার ত্বকের ছিদ্রগুলো দিয়ে ময়লা বের করে দেয়। এতে সহজেই ব্রণ কমে আসে।
ক্ষত সারাতে সাহায্য করে অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান থাকায় গাজরের জুস এবং হলুদের এই পেস্টটি ত্বকের জন্য খুবই কার্যকরী। এটি ফুসকুড়ি, ত্বক কেটে গেলে কিংবা পুড়ে গেলে তা সারাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

এই খবর শেয়ার করুন
  • Share on Google+